জাতীয় মহিলা সংস্থা মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৫ জুন ২০১৮

আমার ইন্টারনেট আমার আয় কর্মসূচি:

 

‘আমার ইন্টারনেট আমার আয়’ বাংলাদেশের নারীদের জন্য একটি ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং কর্মসূচী। এই কর্মসূচীটির আওতায় দেশের প্রতিটি জেলা থেকে ৩৬ জন নারীকে পর্যায়ক্রমে ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং প্রদানের পরিকল্পনা করা হয়েছে। মোট দুই বছরে ৬৪ জেলাতে এই ট্রেনিং দেওয়া হবে।

এই কর্মসূচীতে ফ্রিল্যান্সিংয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহ যেমন- ডাটা এন্ট্রি, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, ওয়েব ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং এবং ই-কমার্স বিজনেসের উপর প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

২০১৭ সালের ৫ই নভেম্বর কর্মসূচীটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠিত হয়। উদ্বোধনীর ঠিক পরের দিন অর্থাৎ ৬ নভেম্বর, ২০১৭ থেকে অনলাইন ক্লাস শুরু হয়। প্রথম ধাপেই একসাথে ৮টি জেলায় ট্রেনিং কার্যক্রম শুরু করা হয়েছিল। এখন অবধি মোট ৩০টি জেলায় এই ট্রেনিং সম্পন্ন করা হয়েছে। বাকি জেলাগুলোতেও প্রশিক্ষণ দেয়ার কাজ চলছে।

প্রতিটি জেলায় তিন ধাপে এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। প্রথম ধাপে প্রশিক্ষণার্থীরা ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে অনলাইনে ২২টি লাইভ ক্লাসে অংশগ্রহণ করে। অনলাইন ক্লাস শেষে ট্রেইনাররা প্রতিটি জেলায় গিয়ে প্রশিক্ষণার্থীদের ৬টি মুখোমুখি (ফেস টু ফেস) ক্লাস নেন। মুখোমুখি ক্লাসে মূলত অনলাইন ক্লাসের সমস্যাসমূহ নিয়ে আলোচনা করা হয় এবং শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়। এর পরের চার মাস প্রশিক্ষণার্থীদেরকে তাদের পছন্দ অনুযায়ী প্রজেক্ট দেওয়া হয়। এই চার মাসের মধ্যে প্রশিক্ষণার্থীরা তাদের প্রজেক্ট সাবমিট করবে। প্রজেক্ট সম্পন্ন করার সময়ে তারা যেকোনো সমস্যায় প্রশিক্ষকদের কাছ থেকে অনলাইন সাপোর্ট পাবে।

ধারণা করা যায়, এই চার মাস প্রজেক্ট সাপোর্টের পরেই মনযোগী এবং আগ্রহী শিক্ষার্থীরা ফাইভার, আপওয়ার্ক কিংবা ফ্রিল্যান্সার ডট কম এর মতো আন্তর্জাতিক মানের ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেসগুলো থেকে কাজ করে অর্থ উপার্জন করার মতো দক্ষতা অর্জন করবে।   

এই কর্মসূচীর আওতায় প্রতিটি জেলা থেকে ৩৬ জন করে সারা দেশে মোট ২৩০৪ জন প্রশিক্ষণার্থী ফ্রিল্যান্সিং ট্রেনিং গ্রহণ করবে। কেবল মাত্র জাতীয় মহিলা সংস্থার জেলা ভিত্তিক মহিলা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ (৬৪ জেলা) প্রকল্প থেকে বিভিন্ন ব্যাচে সার্টিফিকেট প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরাই এই প্রশিক্ষণের জন্য বিবেচিত হবে।

এই ট্রেনিংয়ে প্রতিটি প্রশিক্ষণার্থীকে একটি করে ফ্রিল্যান্সিং গাইড বই, সনদপত্র ও বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে অনলাইনে ক্লাস করার জন্য ইন্টারনেট বিল বাবদ ভাতা দেয়া হয়। অনলাইনে পড়াশোনা এবং তাদের পরীক্ষা নেয়ার জন্য একটি ই-লার্নিং ওয়েবসাইট (www.aiaa.gov.bd)  তৈরি করা হয়েছে। যেখানে প্রতিটি টপিকের উপর যুগোপযোগী ট্রেনিং ম্যাটেরিয়াল প্রস্তুত করে দেয়া হয়েছে। প্রশিক্ষণার্থীদের সার্বক্ষণিক সাপোর্টের জন্য তৈরি করা হয়েছে ভিডিও টিউটোরিয়াল। এই ওয়েবসাইটে প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীর জন্য অনলাইন পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থাও রয়েছে।

এই কর্মসূচীর আওতায় গড়ে তোলা হয়েছে আরো একটি ওয়েবসাইট (www.womenfreelancer.gov.bd)। যেটিকে আন্তর্জাতিক মানের ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটগুলোর মতো করেই তৈরি করা হয়েছে। যেখানে ফ্রিল্যান্সিংয়ের বিভিন্ন কাজ দেয়া এবং নেয়া, দুটোর ব্যবস্থাই রয়েছে। এই ওয়েবসাইটে ‘আমার ইন্টারনেট আমার আয়’ কর্মসূচী থেকে প্রশিক্ষণ নেয়া স্টুডেন্টদের প্রোফাইলও রয়েছে।


Share with :

Facebook Facebook